বাংলাদেশী ট্রাকের ধাক্কায় গুরুতর আহত পুলিশ সহ অনেকে

অর্ণব মৈত্রঃ সোমবার রাত আনুমানিক দেড়টা, বসিরহাট থানার পুলিশের কাছে খবর আসে ঘোজাডাঙা সীমান্তের দিক থেকে বসিরহাট শহরে ঢুকছে একটি বাংলাদেশী ট্রাক (ঢাকা মেট্রো ট-২০৭৪৭৯)। খবর পেয়ে ট্রাকটি ধরতে গিয়ে ইছামতি সেতুর দক্ষিণ পাশের শেষ প্রান্তে ট্রাকটির সামনে চলে আসেন বসিরহাট থানার পুলিশের গাড়ি। পুলিশের গাড়ির সিগন্যাল অগ্রাহ্য করে পালাতে গিয়ে সামনে থেকে পুলিশের গাড়িতে ধাক্কা মারে ট্রাকটি। মুখোমুখি সংঘর্ষে জখম হন এসআই সন্দীপ সরকার ও গাড়ির চালক হান্নান গাজী। সেই অবস্থায় ওই ট্রাক চালককে ধরে ফেলে পুলিশ। গুরুতর জখম অবস্থায় পুলিশের এসআই ও চালককে ভর্তি করা হয় বসিরহাট জেলা হাসপাতালে। এর আগে নিয়ন্ত্রণহীন ট্রাকটি কাটিয়াহাট, বিরামনগর ও আটুরিয়া এলাকায় বেশ কয়েকজন পথচারীকে ধাক্কা মারে। এমনকি রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে আটকাতে গিয়েও জখম হন কয়েকজন। আটুরিয়ার বাসিন্দা সাদিকুল গাজী নামে এক পথচারিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রেফার করা হয় কলকাতার আরজিকর মেডিক্যাল হাসপাতালে।
পণ্যবাহী বাংলাদেশী ট্রাক ঘোজাডাঙা পোর্ট লাগোয়া দু’কিলোমিটারের বেশী যাওয়ার অনুমতি না থাকলেও মাঝরাতে ট্রাকটি শহরে ঢুকে পড়ায় প্রশ্ন উঠেছে প্রশাসনের নজরদারি নিয়ে। বাংলাদেশী ট্রাক নিয়ন্ত্রণহীন ভাবে শহরে ঢুকে পড়ার বিষয়ে কথা বললে বসিরহাটের পুলিশ সুপার কে শবরী রাজকুমার জানান, ‘নিয়ন্ত্রণহীন ভাবে গাড়ি চালানোর খবর পেয়ে তাকে আটকাতে গিয়ে আমাদের একজন পুলিশ কর্মী জখম হয়েছে। ট্রাকটি উদ্ধারের সঙ্গে ট্রাকের চালককেও আটক করা হয়েছে জিজ্ঞাবাদের জন্য’।