রোহিঙ্গা ইস্যুতে বড় নাশকতার ছক বানচাল, গ্রেপ্তার খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডের মূল অভিযুক্ত!

 

বাংলা hunt ডেস্ক : বর্ধমানের খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডে বড় সাফল্য পেল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা তথা এনআইএ। মাঝে কেটে গিয়েছে দীর্ঘ ৩ বছর। অবশেষে এই বিস্ফোরণ কাণ্ডের মূল অভিযুক্ত কওসর গ্রেপ্তার হয়েছে। মঙ্গলবার বেঙ্গালুরু স্টেশন থেকে এনআইএ আধিকারিকদের হাতে ধরা পড়েছে সে। তাকে ৫ দিনের ট্রানসিট রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। আর শুধুমাত্র কওসর নন, তার এক সাগরেদও গ্রেপ্তার হয়েছে এনআইএ আধিকারিকদের হাতে। ২০১৪ সালে ২ অক্টোবর বর্ধমানের খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডের অন্যতম মূল অভিযুক্ত ছিল কওসর। ওই বিস্ফোরণ কাণ্ডে দুজন জঙ্গির বিস্ফোরক তৈরি করতে গিয়ে নিহত হয়। আর মূল দুই অভিযুক্ত পলাতক ছিল। এরা মুজাহিদিন বাংলাদেশ বা জেএমবি-এর দুই জামাত নেতা কওসর ও সোহেল মেহফুজ ওরফে হাতকাটা নাসিরুল্লা। এই দুই জঙ্গি নেতারই নাম তদন্তে উঠে আসে। আর এনআইএ-র দীর্ঘ প্রচেষ্টায় অবশেষে সাফল্য মিলল। প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার প্রাক্কালে কওসরের গ্রেপ্তারি এক বড় সাফল্য। কেননা তাকে জেরা করে জানা গিয়েছে, দেশের একাধিক দক্ষিণের রাজ্য, যেমন কেরল, তামিলনাড়ু, কর্ণাটকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বড় নাশকতার ছক কষেছিল সে। এজন্য প্রায় ১৫ জনকে সে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন বিস্ফোরক বানাবার প্রশিক্ষণ দিয়েছিল। কওসরের বেঙ্গালুরুর ডেরা থেকে বিস্ফোরক ও বিস্ফোরক বানাবার একাধিক সামগ্রী উদ্ধার হয়েছে।

প্রসঙ্গত , গত ৪ জুলাই খাগড়াগড় বিস্ফোরণকাণ্ডে আরও এক অভিযুক্ত সোহেল মেহফুজ ওরফে হাতকাটা নাসিরুল্লা এনআইএ আধিকারিকরা গ্রেপ্তার করেন। পাশাপাশি এনআইএ কওসরের হদিশ দিতে পারলে ১০ লক্ষ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করেছিল। যদিও শেষপর্যন্ত তদন্তকারী আধিকারিকদের হাতে ধরা পড়ল কওসর। অবশ্য, রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতে বড় নাশকতার পরিকল্পনায় প্রকাশ্যে আসায় চিন্তিত তদন্তকারী আধিকারিকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *